একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট নামে আরও একটি নতুন জোটের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। গতকাল রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে এক সংবাদ সম্মেলনে এই নতুন জোটের নাম ঘোষণা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টিসহ সমমনা দল নিয়ে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট গঠন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের চেয়ারম্যান আলমগীর মজুমদার। তিনি ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্সেরও চেয়ারম্যান। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি’র মহাসচিব ও নব গঠিত জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের মহাসচিব বি এম নাজমুল হক। জোট চেয়ারম্যান আলমগীর মজুমদার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, জোটের পক্ষ থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুই বড় জোটের বাইরে থেকে ৩০০ আসনেই অংশগ্রহণ করবে। কিছু দিনের মধ্যেই আবারও সংবাদ সম্মেলন করে জোটের ৩০০ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।

জোটের শরীক দলগুলো হলো- বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, নিবন্ধন নং-২৮, দলীয় প্রতীক- কাঁঠাল, ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স, বাংলাদেশ জনতা দল, বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন আন্দোলন, বাংলাদেশ ইসলামিক মুভমেন্ট, বাংলাদেশ আইডিয়াল পার্টি, জমিয়াতুল উলামা ফ্রন্ট, বাংলাদেশ আওয়ামী পার্টি, স্বাধীনতা পার্টি, বাংলাদেশ প্রতিবাদী জনতা পার্টি, জন গণতান্ত্রিক পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল পিপলস পার্টি, বাংলাদেশ ডেমোক্র্যাটিক পার্টি।
জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট জাফর আহমেদ জয়ের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের কো-চেয়ারম্যান আলীনূর রহমান খান সাজু, ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আবুল বাশার, মাওলানা মাহবুবুর রহমান বিন নূরী, মির্জা আজম, মোহাম্মদ আমান উলাহ সিকদার, মোহাম্মদ ওমর ফারুক ফরাজী, ডা. মোহাম্মদ মনির হোসেন চৌধুরী ও যুগ্ম মহাসচিব মির্জা আমিন আহমেদ প্রমূখ।

মতামত দিন